আমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is import

 সম্মানিত পাঠক  পাঠিকা বৃন্দ, (আসসালামু আলাইকুম) 

এই পোস্টের প্রধান আলোচনা হচ্ছে আমদানি কি? উদাহরণসহ বিস্তারিত।
Import = আমদানি 

 
আমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is importআমদানি কাকে বলে? সংজ্ঞা What is import
আমদানি কাকে বলে?সংজ্ঞা What is Import

 

Import বা আমদানি কাকে বলে?

আল্লাহতালা এই পৃথিবীকে খুবই সুন্দর করে সৃষ্টি করেছেন মানবজাতির কল্যাণের জন্য।

শুধু মানব জাতি নয় এই পৃথিবীতে যত প্রাণীকুল আছে তাদের সবার প্রয়োজনে আল্লাহ তা’আলা বিভিন্ন নাজ নেয়ামত সৃষ্টি করেছেন।

এই পৃথিবীতে যতগুলো রাষ্ট্র রয়েছে সেগুলোর মধ্যে বিভিন্ন পার্থক্য রয়েছে।

এ রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে মানুষের ভাষা ব্যবহারের পার্থক্য রয়েছে। জলবায়ু ভূপ্রকৃতি প্রাকৃতিক সম্পদ এবং ভৌগোলিক অবস্থানের দিক দিয়ে একটি দেশ এক এক রকম হয়।

কোন কোন দেশে পণ্য উৎপাদন খুবই বেশি হয়। কোন কোন দেশে খনিজ সম্পদ অফুরন্ত থাকে। দেখা যায় একটি রাষ্ট্রে একটি পণ্য উৎপাদন হলে ঐ পণ্যটি আরেকটি রাষ্ট্রের উৎপন্ন হয় না।

একটি দেশে মানুষের প্রয়োজনীয় কিছু পণ্য উৎপাদন হয়। কিন্তু মানুষের সব প্রয়োজনীয় পণ্য একটি রাষ্ট্রে উৎপাদন হয় না।

কিন্তু মানুষ বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম অবশ্যই দরকার হয়। তাই মানুষের প্রয়োজন বা চাহিদাকে থেমে রাখা যায় না। 

এজন্য একজন মানুষ বা একটি দেশের প্রয়োজন মিটাতে প্রয়োজনীয় পণ্য বা সেবা সামগ্রী অবশ্যই দরকার।

তাই নিজের এবং দেশের প্রয়োজন মেটাতে একটি দেশে যে পণ্য উৎপাদন হয়, সেই পণ্য উৎপাদনের জোর চেষ্টা চালিয়ে যায়।

এবং বিভিন্ন পণ্য উৎপাদনে সফল হলে সেই পণ্য অন্য দেশে বিক্রি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে। এরকম বিক্রয় কে রপ্তানি বা রপ্তানি বাণিজ্য বলা হয়।


কিন্তু নিজের দেশে যে প্রয়োজনীয় পণ্য উৎপাদন করা যায় না সে প্রয়োজনীয় পণ্য অন্য উৎপাদনশীল দেশ থেকে ক্রয় করতে হয়। এতে করে নিজেদের দেশের মানুষের চাহিদা মেটানো যায়।


পণ্য উৎপাদনের এরূপ বিশেষায়ণ ফলে এই বিশ্বে একটি দেশ আরেকটি দেশের উপর নির্ভরশীল হয়।

এ ধরনের পারস্পরিক প্রয়োজনীয়তা থেকে একটি দেশের সঙ্গে আরেকটি দেশের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য তৈরি হয়। একটি দেশের প্রয়োজন মিটাতে আরেকটি দেশের সঙ্গে ক্রয় বিক্রয় বাণিজ্য তৈরি হয়।

আমদানি কাকে বলে?

সংক্ষেপে বলা যায় যে, একটি দেশ নিজের দেশের মানুষের চাহিদা মেটানোর জন্য কোন প্রয়োজনীয় পণ্য এবং সেবা সামগ্রী অন্য রাষ্ট্র থেকে ক্রয় করে,তাকে আমদানি বা Import বলা হয়। 


একটি দেশ আরেকটি দেশের সঙ্গে এরূপ লেনদেনের ফলে দুটি দেশের লাভ হয়। যে দেশ পণ্য বা সেবা সামগ্রী বিক্রয় বা রপ্তানি করে। সেই দেশ তার পণ্য এবং সেবা সামগ্রী রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে তার দেশকে স্বাবলম্বী করতে পারে।


অন্যদিকে যে দেশে নিজেদের প্রয়োজনীয় সেবা সামগ্রী উৎপন্ন হয় না, সে দেশ মানুষের প্রয়োজন মিটানোর জন্য  অন্য দেশ থেকে পণ্য বা সেবা সামগ্রিক ক্রয় করে জনগণের প্রয়োজন মেটায়। এই ক্রয় কে আমদানি বা আমদানি বাণিজ্য বলা হয়।


এই পণ্য এবং সেবা সামগ্রী ক্রয় আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনে ডলারের বিনিময়ে সম্পন্ন করতে হয়।
কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান দেশীয় ও আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী অন্য দেশ থেকে পণ্য আমদানি করলে তাকে আমদানি কারক বলা হয়। সুতরাং, পণ্য বা সেবা সামগ্রী আমদানি খুবই প্রয়োজনীয় একটি খাত।

এ আমদানির ফলে যে পণ্য নিজের দেশে উৎপাদন হয় না সে পণ্য অন্য দেশ থেকে ক্রয় করে নিজের দেশের মানুষের প্রয়োজন মেটাতে পারে।

আর যে দেশ পণ্য বিক্রয় বা রপ্তানি করে, সে দেশ পণ্য বা সেবা সামগ্রী রপ্তানি করে দেশকে উন্নত করতে পারে। 

 

About Author

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *